নতুন বছরের প্রথম দিনেই মৃত সিভিক ভলেন্টিয়ারের বাবা পেলেন এক কোটি টাকা। প্রায় বছর দুয়েক আগে মুর্শিদাবাদ জেলার বড়ঞার মিঠুন শেখ নামে এক সিভিক ভলেন্টিয়ার বাইক দুর্ঘটনায় মারা গিয়েছিল। বয়স ছিল আনুমানিক 25 বছর। একমাত্র ছেলে হারানোর শোকে তার বাবা সাহাদ্দুলা দিশেহারা হয়ে পড়েছিলেন। শারীরিক অসুস্থতার জন্য তার বাবা কোন কাজ করতে পারেন না। বয়স আনুমানিক 70 বছর। তিনি প্রতিদিন নিজের পাড়াতে এবং পাশের একটি চায়ের দোকানে বসে দিন কাটান।

   প্রতিদিনের মতো পয়লা জানুয়ারি পাশের চায়ের দোকানে বসে ছিলেন সাহাদ্দুলা এবং বছর ৩০ যুবক হাসিবুল আলি। হাসিবুলের বাড়ি বড়ঞা থানার বাহাদুরপুর গ্রামে। তার একটি ছোট্ট কাপড়ের দোকান আছে। বছর ৭০ বৃদ্ধার সঙ্গে বছর ৩০ যুবকের বন্ধু। শুনলে অবাক লাগলেও তারা নিজেদেরকে বন্ধু বলেই দাবি করেছেন। বছরের প্রথম দিনেই ভাগ্য পরীক্ষার জন্য, বছর 70 ঐ বৃদ্ধার সঙ্গে বছর ৩০ ঐ যুবক একটি লটারি টিকিট কাটেন। আর তাতেই ভাগ্যের পরিবর্তন হয় ওই দুই বন্ধুর। ঐ টিকিটে তারা পুরস্কারস্বরূপ ১ কোটি টাকা পান।

   মৃত সিভিক ভলেন্টিয়ারের বাবা সাহাদ্দুলা জানিয়েছেন, ছেলেকে হারিয়ে কার্যত দিশেহারা হয়ে পড়েছিলাম। কোন কাজকর্ম করতে পারছিলাম না। বৃদ্ধ বয়সে এই পুরস্কার হয়তো শেষকালে কাজে লাগবে। অন্যদিকে তার বন্ধু হাসিবুল আলি জানিয়েছেন, জীবনটা সবেমাত্র শুরু করেছিলাম বাহাদুরপুরে ছোট্ট একটা কাপড়ের দোকান দিয়ে। তারপর এই বৃদ্ধ বন্ধুর সঙ্গে বছরের প্রথম দিনের লটারি কেটে ভাগ্যের পরিবর্তন হয়েছে। আমরা ওই টাকা দুইজনের মধ্যে ভাগ করে নেব।